শুরুটা করেছিলেন সাকিব আর নাথান লিয়ন সেটি চালু রাখার ব্যবস্থা করলেন

0
31

শুরুটা করেছিলেন সাকিব আল হাসান। নাথান লিয়ন সেটি শুধু চালু রাখার ব্যবস্থা করলেন। দুয়েমিলে সিরিজের প্রথম টেস্টের এক দিন আগে শুরু হয়ে গেল দুই দলের কথার লড়াইও। অস্ট্রেলিয়ার ক্ষেত্রে মুখের কথায় প্রতিপক্ষের ওপর চড়াও হওয়ার ব্যাপারটি খুব পুরনো। নিয়মিত সেসব খবরের শিরোনামও হয়। তবে বাংলাদেশের ক্ষেত্রে যা একদমই নতুন। টেস্ট ক্রিকেটে তো বটেই। 

শুরুটা করেছিলেন সাকিব আর নাথান লিয়ন সেটি চালু রাখার ব্যবস্থা করলেন

গত বছর অক্টোবরে দেশের মাটিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঐতিহাসিক জয় এবং শ্রীলঙ্কায় টেস্ট জিতে আসা বাংলাদেশ এখন এমন উত্তুঙ্গু আত্মবিশ্বাসে টগবগ করে ফুটছে যে নিজেরাই এবার ‘মাইন্ড গেম’ খেলা শুরু করে দিচ্ছে!

আগের দিন সাকিব সেটি শুরু করার পর গতকাল জবাব দিলেন লিয়নও। যা আগামীকাল থেকে মিরপুরে সিরিজের প্রথম টেস্ট শুরু হওয়ার আগেই লড়াই জমিয়ে দিল যেন! গত পরশু নিজের সংবাদ সম্মেলনে টেস্টের শীর্ষ অলরাউন্ডার বলেছিলেন দেশের মাটিতে অস্ট্রেলিয়ার চেয়ে বাংলাদেশের স্পিন আক্রমণ ঢের এগিয়ে। সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হতে আসা লিয়ন বসতে না বসতেই উঠল সেই প্রসঙ্গ। জবাব যা দিলেন, তাতে মনে হলো সাকিবের বক্তব্যকে বাড়াবাড়িই মনে করছেন অস্ট্রেলিয়ার স্পিন আক্রমণের নেতা, ‘কারা এগিয়ে, সেটি দেখতে হলে আমার মনে হয় আমাদের অপেক্ষা করতে হবে।

শুরুটা করেছিলেন সাকিব আর নাথান লিয়ন সেটি চালু রাখার ব্যবস্থা করলেন

তবে যেহেতু দুই দল পরস্পরের বিপক্ষে খেলেইনি, তাই ওরকম কিছু বলাটা একটু বড় বিবৃতিই হয়ে যায়। ’ লিয়নের ওভাবে বলে দেওয়ার অর্থই হলো মাঠের আগে মুখের লড়াইও শুরু হয়ে যাওয়া। যদিও এই অস্ট্রেলিয়ান অফ স্পিনার মানছেন যে, ‘সবাই অবশ্য নিজের মতামত দিতেই পারে। ’

সেই সুযোগটি তিনি নিয়েছেনও। বলে দিয়েছেন তাঁদের ভাবনার কেন্দ্রবিন্দু তাঁরা নিজেরাই, ‘সত্যি কথা বললে আমাদের ভাবনা নিজেদের নিয়েই। তাদের (বাংলাদেশ) যা ইচ্ছে করে, সেটি তারা বলতেও পারে। তবে আমরা খুব ভালো অনুশীলন করছি, সেই সঙ্গে নিচ্ছি দারুণ প্রস্তুতিও। সামনের চ্যালেঞ্জটা নেওয়ার জন্য আমরা মুখিয়েও আছি। ’ লিয়ন যখন পাল্টা চ্যালেঞ্জ ছুড়ে বসলেন, তখন সংবাদ সম্মেলনে সেটির রেশ খুব সহজে শেষ হওয়ার নয়। তাই আবার ফিরে এলেন সাকিব। কারণ নিজের সংবাদ সম্মেলনে এ অলরাউন্ডার এটিও বলেছিলেন যে আসন্ন টেস্ট সিরিজের দুটি ম্যাচই জেতার লক্ষ্য স্বাগতিকদের। একই লক্ষ্যের কথা কিছুদিন আগে বলেছিলেন বাংলাদেশ দলের হেড কোচ চন্দিকা হাতুরাসিংহেও। পুরনো সে কথাই টাটকা হয়ে ফিরল সাকিবের মুখে। আর তাতে লিয়নের পাল্টা প্রতিক্রিয়াও কম ঝাঁজালো নয়। তাঁর ভাষায়, ‘প্রত্যেকেরই নিজস্ব মতামত ও লক্ষ্য থাকতে পারে। লক্ষ্য আমাদেরও আছে। তবে এখানে বসে তা নিয়ে আপনাদের সঙ্গে কথা বলতে চাই না। ’ তাঁরা চান মুখে হাসি ঝুলিয়ে রেখে প্রতিপক্ষের জীবন কঠিন করে তুলতে, ‘আমরা মুখে হাসি নিয়ে ক্রিকেট খেলতে চাই। সেই সঙ্গে চাই বাংলাদেশের সঙ্গে জোর লড়াই করতে। ’

সেই লড়াইয়ের ফল কী হতে পারে? ২-০? হলে সেটি কার পক্ষে? বাংলাদেশ না অস্ট্রেলিয়ার? স্বাগতিকদের মতো নিজেদের পক্ষে একই ব্যবধানে জেতার আশা অবশ্য শোনা যাচ্ছে না অস্ট্রেলিয়ান শিবির থেকে। লিয়ন বললেন শুধু সিরিজ জিতে ফিরে যাওয়ার লক্ষ্যের কথা, ‘ওরা নিঃসন্দেহে ভালো দল। আমরা দুই টেস্টের সিরিজ খেলতে এসেছি। চেষ্টা করব নিজেদের সেরাটা উজাড় করে দিতে। আশা করছি সিরিজ জিতেই এখান থেকে যেতে পারব আমরা। ’ তবে দলের অন্যদের মতো তামিম ইকবালও চান স্টিভেন স্মিথদের খালি হাতে ফিরিয়ে দিতে। অর্থাৎ তিনিও মনে করছেন অস্ট্রেলিয়াকে ২-০তে হারানো সম্ভব। কিন্তু সে জন্য একাধিক শর্তই জুড়ে দিয়েছেন এই বাঁহাতি ওপেনার, ‘আমার মনে হয় ২-০ করতে হলে আগে ছোট ছোট ব্যাপারগুলো ঠিকভাবে করতে হবে। ২-০ বলে দেব আর হয়ে যাবে, তা তো নয়। যে দলই জিতুক, আমি সব সময়ই বলছি প্রতিটি সেশন, প্রতিটি বল আপনার লড়াই করতে হবে। মাঠে নিজেদের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে হবে। যে দল মাঠে ভালোভাবে বাস্তবায়ন করতে পারবে, ওদের জেতার সম্ভাবনা বেশি থাকবে। দিন শেষে আমরা দল হিসেবে চেষ্টা করব যেন দুটি টেস্টই জিতি। মাঠে ২৭ তারিখ যখন নামব, আমরা চিন্তাই করব যে জেতার জন্যই নামছি। তবে সবারই মনে রাখা উচিত, পাঁচ দিনের খেলা এক ঘণ্টায় শেষ হয়ে যায় না। ’ লিয়নও কি তামিমের বক্তব্যের শেষ লাইনটি মনে করিয়ে দিতে চাইলেন স্বাগতিকদের? এই অফ স্পিনারের পাল্টা চ্যালেঞ্জে তো আগুনে লড়াইয়ের তেজই ছড়িয়ে পড়ল সিরিজ শুরুর এক দিন আগে!

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here