লাইভ ভিডিও চ্যাটের মাঝেই ব্যবসায়ীকে অপহরণ, অতপর..

0
29

ফোনের ভিডিও চ্যাটে বান্ধবীর সঙ্গে গল্প করছিলেন এক তরুণ। এমন সময় দুষ্কৃতিকারীরা অপহরণ করে তাকে।

অপহরণকারীরা লক্ষ্যই করেননি ফোনের ভিডিও চ্যাটটি অন রয়েছে। শেষ পর্যন্ত ওই বান্ধবীর উপস্থিত বুদ্ধির জেরেই বাঁচানো সম্ভব হয় তরুণ ওই ব্যবসায়ীকে।

লাইভ ভিডিও চ্যাটের মাঝেই ব্যবসায়ীকে অপহরণ, অতপর..

মঙ্গলবার রাতে ভারতের উত্তর-পূর্ব দিল্লির পিতমপুরায় এ ঘটনা ঘটে। সোনিপাতের কুন্দলির ফ্যাক্টরি থেকে সেসময় নিজে গাড়ি চালিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন নীতিশ আরোরা নামের ওই তরুণ। জিটি কার্নাল রোডে রোহিনীর কাছে সিন্ধু বর্ডার অতিক্রম করার সঙ্গে সঙ্গেই একটি সাদা রংয়ের মারুতি গাড়ি তার পিছু নেয়। সেই সময় বান্ধবীর সঙ্গে ভিডিও চ্যাট করছিলেন নীতিশ। কিছুক্ষণের মধ্যেই মারুতি গাড়িটি তীব্র গতিতে নীতিশের গাড়িকে অতিক্রম করে পথ আটকে দাঁড়ায়। গাড়ি থামাতে বাধ্য হন নীতিশও। প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই দু’জন লোক নেমে আসে মারুতি থেকে।

আরোরা পুলিশকে জানান, এরপর হঠাৎই তার সঙ্গে কথা কাটাকাটি শুরু করে ওই দুই ব্যাক্তি। জোর করে তাকে বের করে আনা হয় গাড়ি থেকে। তার মাথায় বন্দুক ধরে টানতে টানতে উঠিয়ে নেওয়া হয় মারুতিটিতে। পুরো সময়টিতেই নীতিশের ফোনে ভিডিও চ্যাটে অন ছিলেন ওই বান্ধবী। গোটা ঘটনাটি দেখে তৎক্ষণাৎ নীতিশের বাড়িতে ফোন করেন ওই বান্ধবী। সঙ্গে সঙ্গে পুরো ঘটনাটি জানানো হয় রোহিনী থানায়।

এসময় আরোরার ফোন ট্র্যাক করে সহজেই তার অবস্থান জানতে পারে পুলিশ। রোহিনী থানার ডিএসপি ঋষি পাল জানান, ঘণ্টা খানেকের মধ্যে নীতিশের লোকেশনে পৌঁছে যায় পুলিশের পেট্রোলিং ভ্যান। পুলিশ দেখে ঘাবড়ে যায় দুষ্কৃতিকারীরা। তারা এলোপাথারি গুলি ছুড়তে শুরু করে। দুষ্কৃতিকারীদের গুলিতে আহত হন একজন। তবে দুই অপহরণকারীকেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পাল জানান, অভিযুক্ত দুইজন নয়ডার বাসিন্দা। তাদের নামে আগেও গুরুতর অপরাধের অভিযোগ রয়েছে পুলিশের খাতায়। ওই দুই দুষ্কৃতিকারীর কাছ থেকে পিস্তল ও কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here