বিশ্বের ধনীতম ক্রিকেট বোর্ড সম্পর্কে জানতে বিস্তারিত পড়েন !

Cricket news

১) ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড(বিসিসিআই) – ২৯৫ মিলিয়ন ডলার

ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (বিসিসিআই) সদর দফতর ভারতের মুম্বইয়ে। ভারতের সব ক্রিকেট পরিচালনা করে এই বিসিসিআই। ১৯২৮ সালের ডিসেম্বর মাসে ক্যালকাটা ক্রিকেট ক্লাবকে গঠন করা হয় বিসিসিআই। ২০১১-১২ মরশুমে বিসিসিআই ৪৯.৯৯৬ মিলিয়ন ডলার মুনাফা অর্জন করে, দ্বিতীয় স্থানে থাকা ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডকে (ইসিবি) অনেকটাই পিছনে ফেলে দেয়। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলকে (আইসিসি) জমা দেওয়া সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী ইসিবি মাত্র ২৪.৩০৬ মিলিয়ন ডলার মুনাফা অর্জন করেছে। সেই ক্ষেত্রে বিসিসিআই ও ইসিবির লাভের পার্থক্য ২৫.৬৮৯ মিলিয়ন ডলার।

২) ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকা (সিএসএ) – ৬৯ মিলিয়ন ডলার

বিশ্বের দ্বিতীয় ধনীতম ক্রিকেট বোর্ড হল দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট (সিএসএ)। ৩১ ডিসেম্বর ২০১২’তে এই বোর্ডের মোট ভ্যালু ছিল ৬৮.৪৩৬ মিলিয়ন ডলার। তবে এক নম্বরে থাকা বিসিসিআই দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেট বোর্ডের থেকে এই বিষয়ে ২২৫.৭৮৩ মিলিয়ন ডলারে এগিয়ে ছিল। ৬০.৫০৮ মিলিয়ন ডলার আয় করা সত্ত্বেও, সিএসএ মোট ৬.০২৭ মিলিয়ন ডলারের একটি ক্ষতির হিসাব দেখায়। এছাড়াও, সিএসএ ও জিম্বাবোয়ে, এই দুটি হল এমন বোর্ড যাদের আয়ের থেকে ব্যায় বেশি হয়েছিল (৬৬.৫৩৬ মিলিয়ন ডলার)

৩) ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি) – ৫৯ মিলিয়ন ডলার

ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি) ইংল্যান্ড ও ওয়েলসের ক্রিকেট পরিচালনাকারী সংস্থা। ১ জানুয়ারি ১৯৯৭ সালে টেস্ট এবং কাউন্টি ক্রিকেট বোর্ড, জাতীয় ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন এবং ক্রিকেট কাউন্সিলের মিশ্রনে তৈরি করা হয় এই বোর্ড। ২০০৭ সালে ইসিবির আয় ছিল ৯৩ মিলিয়ন পাউন্ড। ঠিক তার আগের বছর এই বোর্ডের আয় ছিল ৭৭ মিলিয়ন পাউন্ড। এক বছরেই অনেকটাই লাভের মুখ দেখে তারা।

৪) পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) – ৫৫ মিলিয়ন ডলার

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের একটি ক্রীড়া সংগঠন যা সেই দেশের যাবতীয় পেশাদার ক্রিকেট, টেস্ট ও একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনা করে। পাকিস্তানের জাতীয় ক্রিকেট দলের যাবতীয় ম্যাচ পরিচালনা করার দায়িত্ব পিসিবি’র। ১৯৪৮ সালে এই বোর্ড স্থাপিত হয়। জুলাই, ১৯৫২ সালের জুলাই মাসে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলে (আইসিসি) যোগ দেয় পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। তারপর থেকে পিসিবি আইসিসি’র পূর্ণ সদস্য হয়ে টেস্ট ম্যাচ খেলছে। ১৯৫২ সালে ভারতের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্ট সিরিজ খেলে পাকিস্তান ক্রিকেট দল।

৫) বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) – ৫১ মিলিয়ন ডলার

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) আগে বাংলাদেশ ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (বিসিসিবি) নামে পরিচিত ছিল। ২৬ জুন ২০০০ সালে আইসিসির পূর্ণ সদস্যের মর্যাদা পায়। বিসিবির সদর দফতর সেই দেশের রাজধানি ঢাকাতে। সেখান থেকেই দেশের খেলা, মাঠ নির্বাচন, ক্রিকেটের উন্নয়ন ও রক্ষণাবেক্ষণের কাজ চালায় বিসিবি। এই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড বাংলাদেশ সরকার দ্বারা পরিচালিত হয়।

৬) জিম্বাবোয়ে ক্রিকেট (জিসি) – ৩২ মিলিয়ন ডলার

জিম্বাবোয়ের ক্রিকেট পরিচালনা করার দায়িত্বে রয়েছে এই জিম্বাবোয়ে ক্রিকেট (জিসি)। এটা আগে জিম্বাবোয়ে ক্রিকেট ইউনিয়ন (জিসিইউ) নামে পরিচিত ছিল। এই জিম্বাবোয়ে ক্রিকেট বোর্ড আইসিসির পূর্ণ সদস্য। সেই দেশের ক্রিকেটের যাবতীয় পরিচালনার দায়িত্ব এই জিম্বাবোয়ে ক্রিকেটের ঘাড়ে। এর মধ্যে রয়েছে টেস্ট ক্রিকেট, ওষান ডে ম্যাচ, টি-২০ ম্যাচ।

৭) ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) – ২৪ মিলিয়ন ডলার

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) আগে অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট বোর্ড নামে পরিচিত ছিল। অস্ট্রেলিয়ার পেশাদার এবং অপেশাদার ক্রিকেট গভর্নিং বডি হযল এই সিএ। ১৯০৫ সালে এটি মূলত ‘আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কন্ট্রোল অস্ট্রেলিয়ান বোর্ড’ হিসাবে গঠন করা হয়। গ্যারান্টি দ্বারা, এটি একটি অস্ট্রেলিয়ান পাবলিক কোম্পানী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

৮) শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট (এসএলসি) – ২০ মিলিয়ন ডলার

শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বা এসএলসি আগে (বিসিসিএসএল) নামে পরিচিত ছিল। এটি শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটকে নিয়ন্ত্রণ করে। এটি শ্রীলঙ্কার জাতীয় ক্রিকেট দল এবং প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেট পরিচালনা করে থাকে। এই ক্রিকেট বোর্ড দেশের সরকার দ্বারা ও বিভিন্ন কমিটি দ্বারা পরিচালিত হওয়ার কারণে বিভিন্ন সময় প্রাক্তন ক্রিকেটার ও সাংবাদিকদের দ্বারা সমালোচিত হয়েছে।

৯) ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড (ডব্লিউআইসিবি) – ১৫ মিলিয়ন ডলার

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড (ডব্লিউআইসিবি) সেই দেশের পেশাদার এবং অপেশাদার ক্রিকেট নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা। ১৯২০ সালে প্রথম এই বোর্ডের গঠন করা হয়। তবে ১৯৯৬ সালে এই বোর্ডের নাম বদলে যায়। নাম পরিবর্তন করে এই বোর্ডের সদর দফতার এখন সেন্ট জনস, অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুডা’তে। ১৯২৬ সাল থেকে এই ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেক বোর্ড আইসিসির পূর্ণ সদস্য

১০) নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট (এনজেসি) – ৯ মিলিয়ন ডলার

এই তালিকায় সবার নীচে রয়েছে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট। এই বোর্ডের মোট আয় ৮.৬১১ মিলিয়ন ডলার, যার মধ্যে মুনাফা মাত্র ২.২৮৫ মিলিয়ন ডলার। বাকি বোর্ডগুলির তুলানায় এই আয় খুবই কম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here