বন্যার দূষিত পানি বিশুদ্ধ করার নিয়মাবলী জেনে রাখবেন

0
36

বিশুদ্ধ পানিই জীবন, আর দূষিত পানি মরণ। মানবদেহের প্রায় ৭৫ ভাগ পানি। একজন সুস্থ মানুষের প্রতিদিন কমপক্ষে ১ দশমিক ৫ লিটার পানি পান করা উচিত। পানি মানবদেহের বিভিন্ন বায়োকেমিক্যাল বিক্রিয়া, যেমন—খাদ্য গ্রহণ, হজম, বিপাক, বিভিন্ন উপাদান বহন, ক্ষতিকর উপাদান শরীর থেকে নির্গমন, তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ, এসিড-বেসের সমতা রক্ষা করে।

বিশুদ্ধ পানিই জীবন, আর দূষিত পানি মরণ।
বিশুদ্ধ পানিই জীবন, আর দূষিত পানি মরণ।

এখন সারা দেশে বন্যা। এ রকম অবস্থায় খাওয়ার পানির অভাব হয়ে পড়ে। বন্যার দূষিত পানি পানে হতে পারে ডায়রিয়া, কলেরা, আমাশয়, টাইফয়েড, জন্ডিসের মতো মারাত্মক পানিবাহিত রোগ। এতে মৃত্যুঝুঁকি বাড়ে। তাই চাই বিশুদ্ধ পানি।

পানি বিশুদ্ধ করবেন নিয়মাবলী

১. পানি ফুটানো

সরাসরি বন্যার পানি ফুটানোর সময় বুদবুদ ওঠার ১৫ থেকে ২০ মিনিটের পর বিশুদ্ধ হয়ে যায়। এতে সহজে পানি পান করা যায়। তবে মনে রাখবেন, পানি বেশি ফুটালে অক্সিজেনের পরিমাণ কমে যায় এবং বিভিন্ন ক্ষতিকর উপাদানের পরিমাণ বেড়ে যায়।

২. বিভিন্ন রাসায়নিক দ্রব্য দিয়ে পানি বিশুদ্ধকরণ

* ফিটকারি : ফিটকারি এক জগ পানিতে ৩০ মিনিট রেখে দিলেই পানি পানের যোগ্য হয়।

* আয়োডিন : প্রতি লিটার পানিতে দুই ভাগ আয়োডিন দ্রবণ মিশিয়ে এক ঘণ্টা রেখে দিলে পানি বিশুদ্ধ হয়।

* হ্যালোজেন : তিন লিটার পানিতে একটি হ্যালোজেন ট্যাবলেট গুলিয়ে রেখে দিলে এক ঘণ্টা পর পানি বিশুদ্ধ হয়।

৩. বৃষ্টির পানি

বৃষ্টি শুরু হওয়ার ১০ মিনিট পর থেকে পরিষ্কার পাত্রে পানি সংগ্রহ করে রাখলে পানি পানের উপযোগী হয়।

লেখক : সহকারী অধ্যাপক, গণস্বাস্থ্য সমাজভিত্তিক মেডিকেল কলেজ, সাভার, ঢাকা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here