টাইগারদের নিয়ে অজিদের ‘হোমওয়ার্ক

0
16

আমাদের বেশি মনোযোগ নিজেদের দিকেই। নিজেদের স্কিল নিয়েই ভাবছি; কিভাবে স্কিল দিয়ে ওদের হারানো যায়। ওদের ক্রিকেটারদের বিশ্লেষণ করেছি আমরা, আলোচনা করেছি কি করতে চাই। তবে আমাদের মূল ভাবনা নিজেদের নিয়েই। আমাদের নিয়ন্ত্রণে যা আছে, তা ঠিকঠাক করতে চাই -অ্যাশটন অ্যাগার

 

দীর্ঘ ১১ বছর পর বাংলাদেশে টেস্ট খেলতে এসে টাইগারদের নিয়ে ব্যাপক হোমওয়ার্ক করছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। বাংলাদেশের ব্যাটিং, বোলিং নিয়ে গভীরভাবে বিশ্লেষণ করে চলেছেন স্মিথ-ওয়ার্নাররা। মঙ্গলবার অনুশীলন শুরু করার পূর্বে সংবাদ সম্মেলনে অজি স্পিনার অ্যাশটন অ্যাগার সেটা পরিষ্কার করেই জানিয়ে গেলেন।
অজিদের ‘হোমওয়ার্ক’ শুধুই যে বাংলাদেশকে নিয়ে, তা কিন্তু নয়। অ্যাগার জানালেন, প্রতিপক্ষদের চেয়ে নিজেদের নিয়েই বেশি ভাবছে অস্ট্রেলিয়া, ‘গোটা দুই টিম মিটিং হয়েছে আমাদের। আমাদের বেশি মনোযোগ নিজেদের দিকেই। নিজেদের স্কিল নিয়েই ভাবছি; কিভাবে স্কিল দিয়ে ওদের হারানো যায়। ওদের ক্রিকেটারদের বিশ্লেষণ করেছি আমরা, আলোচনা করেছি কি করতে চাই। তবে আমাদের মূল ভাবনা নিজেদের নিয়েই। আমাদের নিয়ন্ত্রণে যা আছে, তা ঠিকঠাক করতে চাই।’

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২০১৩ সালের ১০ জুলাই টেস্ট অভিষেক অ্যাগারের। দ্বিতীয় টেস্ট খেলেন সেই ইংল্যান্ডের বিপক্ষেই ১৮ জুলাই। ওটাই ছিল তার শেষ টেস্ট। দীর্ঘ অপেক্ষার পর এখন তৃতীয় টেস্ট খেলার জন্য তৈরি হচ্ছেন তিনি। ঢাকা টেস্টে বাংলাদেশের শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনআপকে ভেঙ্গে দিতে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করতে চান অ্যাগার। মিরপুর টেস্টে নাথান লায়নের স্পিন জুটি হবেন এই বাঁহাতি স্পিনারই। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘উপমহাদেশের কন্ডিশনে স্পিনাররা বেশ সফল আর তাই চার বছর পর তার টেস্ট দলে সুযোগ পাওয়ার বেশ সম্ভাবনা রয়েছে।’
টেস্ট ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত ২টি উইকেট নিয়েছেন অ্যাগার। আর ব্যাটিংয়ে রয়েছে ৯৮ রানের একটি ইনিংস। ব্যাটিং গড় ৩২.৫০। টেস্ট বা ওয়ানডে বেশি খেলতে না পারা এই অফ স্পিনারের প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে বেশ ভালো পারফরম্যান্স রয়েছে। টাইগারদের বিপক্ষে একাদশে সুযোগ পেলে ভালো কিছু করতে চান এই অলরাউন্ডার। তিনি বলেন, ‘যদি একাদশে সুযোগ পাই তবে ভালো কিছু করতে চাই। দলে আমার অবস্থানকে পাকা করতে চাই। আর চার বছর পর আমার টেস্ট দলে ফেরাটাও বেশ গুরুত্বপূর্ণ।’
তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকারের সঙ্গে ইমরুল কায়েস, বাংলাদেশের টপ অর্ডারে তিনজনই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। বাঁহাতি স্পিনার অ্যাগারের কাজটি তাই একটু কঠিন। তবে শট খেলতে পছন্দ করেন তিনজনই। মিডল অর্ডারে সাকিব আল হাসান, সাবি্বর রহমানরাও খেলেন আগ্রাসী ঢংয়ে। অ্যাগার জানান, টাইগার ব্যাটসম্যানদের ব্যাটিংয়ের ধরনটিই কাজে দিতে পারে অস্ট্রেলিয়ার জন্য।
নিজের কাজটাকে কঠিন মানলেও তাই আশায় অ্যাগার, ‘বাঁহাতি স্পিনে বাঁহাতি ব্যাটসম্যানরা স্পিনের সঙ্গে ব্যাট চালাবে। বাঁহাতি স্পিনার হিসেবে আমার কাজটি কঠিন। তবে ওরা সাধারণত বেশ আগ্রাসী ব্যাটসম্যান। চ্যালেঞ্জটি তাই দারুণ কঠিন। তবে আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে প্রায়ই উইকেট হারানোর ভয় থাকে। এটি তাই আমাদের পক্ষেও কাজ করতে পারে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here