গর্ভে ছিলো যমজ সন্তান কিন্তু একটিকে গর্ভে রেখেই সেলাই সমাপ্ত, তারপর কি ভয়ানক পরিস্থিতি হলো (দেখুন ভিডিওতে)

0
66

গর্ভে ছিলো যমজ সন্তান। কিন্তু অপারেশন থিয়েটারে জন্ম হলো একটির। আরেকটিকে টিউমার ভেবেই শেষ হয় সিজার। খামখেয়ালী আর দায়িত্বহীনতার এমন নজির গড়েছেন, কুমিল্লার একজন সরকারি চিকিৎসক। তবে নিজ কর্মস্থলে নয়, অনুমোদনহীনভাবে বেসরকারি এক হাসপাতালে। মায়ের অবস্থা সংকটাপন্ন হলে একমাস পর ঢাকা মেডিকেলে অপরেশনে দেখা গেলো যেটিকে টিউমার ভাবা হয়েছিল, সেটি আসলে তার আরেক সন্তান। সময় মতো প্রসব না হওয়ায় মারা যায় আগেই।

মৃত সন্তান পাশে নিয়ে নির্বাক শুয়ে মা। জানতেন গর্ভে আছে যমজ সন্তান। কিন্তু গত ১৮ সেপ্টেম্বর সিজারের পর জানলেন সন্তান একটিই, আরেকটি টিউমার। গল্প সেখানেই শেষ হতো, যদি না কুমিল্লার দাউদকান্দির খাদিজা আক্তার আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেলে আসতেন। এখানেই জানা গেলো, যাকে টিউমার ভেবে ডাক্তার সিজার শেষ করেছিলেন, সেটিই ছিলো তার আরেক সন্তান।

সিজার হয়েছিলো দাউদকান্দির লাইফ জেনারেল হাসপাতালে। আগের আল্ট্রাসনোগ্রামতো ছিলোই, সি-সেকশন করেও মানবশিশুকে টিউমার ভেবেছেন যিনি সেই চিকিৎসকের নাম শেখ হোসনে আরা বেগম। যিনি মূলত মালিগাঁও সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক। বেসরকারি হাসপাতালে অস্ত্রোপাচারের অনুমতিও নেই তার।

অবশ্য ঘটনা জেনেই লাইফ হাসপাতাল সিলগালা করেছে প্রশাসন। তদন্তের আশ্বাস এসেছে, সিভিল সার্জনের পক্ষ থেকেও। তবে অভিযুক্ত সেই চিকিৎসককে বক্তব্যের জন্য খুঁজেও পাওয়া যায়নি। আর একমাস মৃত সন্তান গর্ভে বয়ে চলা মা’ও এখন আশঙ্কাজনক। তদন্ত আর বিচার কি মায়ের কষ্ট ভোলাতে পারে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here