কাকে রাখবেন আর কাকে বাদ দিবেন তা নিয়ে ঘুম হারাম হাথুরুর

0
3

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে রোববার মিরপুর শেরেবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। দীর্ঘ ১১ বছর পর সাদা জার্সিতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে খেলবে টাইগাররা।

কাকে রাখবেন আর কাকে বাদ দিবেন তা নিয়েই ঘুম হারাম হাথুরুর

এই সিরিজ নিয়ে টাইগার ভক্তদের প্রত্যাশাও অনেক বেশি। আর হবেই না কেন! গত কয়েকবছর বাংলাদেশ যেভাবে ক্রিকেট খেলেছে তাতে টাইগার ভক্তদের প্রত্যাশা তো থাকবেই।

বিশেষ করে ঘরের মাঠে অসাধারণ খেলছে বাংলাদেশ। ইংল্যান্ডকে টেস্টে হারিয়েছে টাইগাররা। তাছাড়া শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেও টেস্টে জিতেছে বাংলাদেশ।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষেও দল ভালো করুক এমনটাই চাওয়া সবার। আর সবার চাওয়া বা প্রত্যাশা পূরণ করতে গিয়ে ‘ঘুম হারাম’ হয়ে গেছে টাইগারদের কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের।

কীভাবে একাদশ সাজাবেন মুশফিক-সাকিবদের গুরু এটাই বড় সমস্যা। এজন্য শুক্রবার রাত কেটেছে নির্ঘুম।

শুক্রবার গভীর রাত ৩টা ৭ মিনিটে মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটারে এক বার্তায় হাথুরু লেখেন, ‘উভয়সংকট। একটি জাতির আবেগ নাকি টিম কম্বিনেশন! #নির্ঘুম রাত।’

১৪ জনের স্কোয়াড ঘোষণা করা হয়েছে অনেক আগেই। প্রথমে বাদ দেয়া হয়েছিল দেশসেরা টেস্ট ব্যাটসম্যান মুমিনুল হককে। ব্যাপক সমালোচনার মুখে মুমিনুলকে দলে নেয়া হয়।

ঘরের মাঠে বরাবরাই দুর্দান্ত খেলেন মুমিনুল। এক সময় তাকে তুলনা করা হতো স্যার ডন ব্রাডম্যানের সঙ্গে।

১৪ জনকে স্কোয়াড থেকে ১১ জনকে নামানো হবে মাঠে। বাদ পড়বেন তিনজন। কাকে রাখবেন আর কাকে বাদ দিবেন তা নিয়েই ঘুম হারাম হাথুরুর।

প্রথম টেস্টের দলে ওপেনার তামিম ইকবাল, বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান, অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম, মোস্তাফিজুর রহমান ও মেহেদী হাসান মিরাজের জায়গা মোটামুটি নিশ্চিত।

তিন স্পিনার খেলানোর পক্ষে বাংলাদেশ। তাই দলে থাকবেন এক অথবা দুজন পেসার। সে ক্ষেত্রে শফিউল ও তাসকিনের মধ্যে একজন সুযোগ পাবেন একাদশে।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্টে তামিমের সঙ্গে ওপেনিংয়ে দেখা গেছে সৌম্যকে। উইকেটে বেশি সময় টিকে থাকতে না পারলেও দ্রুত রান করেছেন সৌম্য।

বেশ কয়েকটি ফিফটি করেছেন এ বামহাতি ব্যাটসম্যান। ওপেনিংয়ে তাই জায়গা হচ্ছে না ইমরুল কায়েসের। আবার ইমরুলকে যদি তিন নম্বরে খেলানো হয় তাহলে বাদ পড়বেন মুমিনুল হক। বলা যায় যাকে আন্দোলন করেই স্কোয়াডে এনেছেন ভক্তরা। এখান থেকে যেকোনো একজনকে বেছে নিতে হবে। কেননা চার এবং পাঁচ নম্বরে আছেন মুশফিক ও সাকিব।

আবার মুমিনুল ও ইমরুলকে নেয়া হলে সেক্ষেত্রে নাসির হোসেন অথবা সাব্বিরকে বাদ দিতে হবে। একজন স্পেশালিস্ট স্পিনারকে খেলানো হলে সেক্ষেত্রে একাদশে অবশ্যই থাকছেন তাইজুল ইসলাম।

এখন কাকে রাখবেন আর কাকে বাদ দিবেন এই নিয়েই ঘুম হারাম হয়ে গেছে হাথুরুর।

কেননা নাসির অথবা মুমিনুলকে বাদ দিলে সমালোচনায় পড়তে হবে কোচকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here