একশ’বছরের মধ্যে চট্টগ্রামসহ ডুবে যাবে যেসব শহর

0
49

As the sea level height is increasing

হিমবাহ ও দুই মেরুর বরফ দ্রুত গলছে। এতে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়তে থাকায় আগামী ১০০ বছরের মধ্যে ছোটবড় সব মিলিয়ে বিশ্বের ২৯৩টি শহর পুরোপুরি পানির নিচে ডুবে যাবে। যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা’র বিজ্ঞানীরা এই আশঙ্কা করেছেন। তালিকায় বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর বন্দরনগরী চট্টগ্রামের নামও রয়েছে। এছাড়া নিউইয়র্ক, লন্ডন, টোকিও, কলম্বো, মুম্বাই, ব্যাঙ্গালোর, হংকং, সাংহাইসহ আরো বেশ কয়েকটি মেগাসিটির নামও রয়েছে অনিবার্য ধ্বংসের এই তালিকায়।

গতকাল রবিবার কলকাতা থেকে প্রকাশিত আনন্দবাজার পত্রিকায় ‘১০০ বছর পর তলিয়ে যাবে এই শহরগুলি! বলছে নাসা’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বিজ্ঞানীদের এমন ভয়াবহ আশঙ্কার কথা প্রকাশিত হয়েছে।

চট্টগ্রামের হারিয়ে যাওয়া অনিবার্য, এমন দাবি করে নাসার অন্যতম বিজ্ঞানী সুরেন্দ্র অধিকারী বলছেন, রেহাই পাবে না বাংলাদেশের বন্দর শহর চট্টগ্রামও। বিশ্বের বাকি ২৯২টি শহরের সঙ্গে চট্টগ্রামও হারিয়ে যাবে জলের অতলে, ১০০ বছর পর। সমুদ্রের পানির স্তর যেভাবে বাড়ছে, তাতে চট্টগ্রামকে বাঁচানো আর সম্ভব হবে না।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, প্রতি ১০ বছর অন্তর ১ দশমিক ৪ সেন্টিমিটার পানির নিচে তলিয়ে যাচ্ছে চট্টগ্রাম শহর। এই হারে পানি বাড়তে বাড়তে আগামী ১০০ বছরের মধ্যেই চট্টগ্রাম শহর থাকবে ১৪ দশমিক ০১ সেন্টিমিটার পানির নিচে। অর্থাৎ তখন আর এই শহরের কোথাও শুকনো মাটির অস্তিত্বই থাকবে না। সবচেয়ে বেশি আশংকার মধ্যে রয়েছে জাপানের টোকিও শহর।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, গোটা ভারতীয় উপমহাদেশ আর তার লাগোয়া এলাকাগুলোর অবস্থাও হবে করুণ। সমুদ্রের পানির স্তর আর ১ মিটার বাড়লেই ভারতীয় উপমহাদেশের অন্তত ১৪ হাজার বর্গ কিলোমিটার এলাকা সমুদ্রের অতলে তলিয়ে যাবে। উষ্ণায়নের জন্য পৃথিবীর সমুদ্রতল কতটা উঠতে পারে ১০ এবং ১০০ বছর পর, তার পূর্বাভাস দিতে গ্র্যাডিয়েন্ট ফিঙ্গারপ্রিন্ট ম্যাপিং (জিএফএম) প্রযুক্তি এনেছে নাসার জেট প্রোপালসন ল্যাবরেটরি (জেপিএল)।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here